নিজস্ব প্রতিবেদক :

দেশে চালের কোনো সংকট নেই। পর্যাপ্ত চাল আছে। তবু বাড়ছে দাম। মজুতদাররা বাজারে না ছেড়ে চাল ধরে রাখছেন বলেই দাম বাড়ছে বলে মনে করছেন বাজার সংশ্লিষ্টরা। তবে বেসরকারিভাবে কার কাছে কত মজুত আছে, সেটা অজানা।

এদিকে, আশঙ্কাজনক হারে কমে গেছে সরকারের চালের বাফার মজুতও।

বাজার থেকে প্রায় দেড় কেজি মোটা চালের আগের দাম দিয়ে এখন এক কেজি কেনাই কঠিন হয়ে পড়েছে।

দেশে চিকন চালের ৬০ ভাগ হয় মিনিকেট। মোটা চাল ৩০-৩৪ ভাগ। বাকিটা হয় অন্যান্য সরু চাল।

কৃষি শুমারি ২০০৮ অনুযায়ী, দেশে মোট পরিবার বা খানা সংখ্যা ২ কোটি ৮৬ লাখ ৯৫ হাজার ৭৬৩টি। এখানে ১ কোটি ৩৫ লাখ ১২ হাজার ৫৮০টি পরিবার কৃষিবহির্ভূত। আর কৃষিকাজে যুক্ত এমন পরিবার এক কোটি ৫১ লাখ ৮৩ হাজার ১৮৩টি।

তবে কৃষিতে যুক্ত পরিবারগুলোর অন্তত ৪৫-৫০ লাখ পরিবার ধান চাষ করলেও পরিবারের চাহিদা মেটাতে কিংবা অন্য ফসলে বিনিয়োগের অর্থের যোগান পেতে জমি থেকে ফসল তোলার পরই তারা তা বাজার দামে বিক্রি করে দেয়। ফলে মৌসুম শেষে এসব পরিবারে মাস চলার মতো চাল থাকে না। তাদেরকেও বাজার থেকে চাল কিনেই খেতে হয়।

কারা এই মজুতের অদৃশ্য পকেট

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, অদৃশ্য পকেটের তালিকায় রয়েছে ৩ হাজার ৫০০টি অটো রাইস মিল এবং ১৮ হাজার ৫০০ রাইস মিল, যারা দেশে ধান-চালের বড় ক্রেতা এবং সরবরাহকারী।

চালের মজুত রয়েছে অন্তত ১৭টি বড় করপোরেট কোম্পানির কাছেও, যারা গত কয়েক বছরে খাদ্যপণ্যের বাজারে প্রবেশ করেছে। তাদের অনেকে সরাসরি চালের ব্যবসার পাশাপাশি খাদ্যবহির্ভূত পণ্য তৈরি করছে, যার উপকরণ হিসেবে চালের প্রয়োজন হচ্ছে।

বাংলাদেশ রাইস রিসার্চ ইনস্টিটিউটের (ব্রি) গবেষণা বলছে, প্রতিবছর দেশে উৎপাদিত চালের ২৪-২৬ শতাংশ এই বড় কোম্পানিগুলোর খাদ্যবহির্ভূত পণ্য তৈরির পেছনে চলে যাচ্ছে।

বাংলাদেশ অটো রাইস মিল ওনার্স অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি এ কে এম খোরশেদ আলম জানান, নিয়মিত আড়তদার, ফড়িয়া, পাইকার ও খুচরা বিক্রেতা, এমনকি বড় মাপের কৃষকও ধান-চাল মজুত করেন।

তিনি দাবি করেন, এক শ্রেণির মৌসুমি ব্যবসায়ীও চাল মজুত করেছেন। এরা উৎপাদন মৌসুম এলেই লাখ লাখ টাকা বিনিয়োগ করে ধান-চাল কিনে নিজেদের সুবিধামতো জায়গায় মজুত রাখেন, আর বাজারে দাম বাড়লে চাল ছাড়েন। তবে মিলারদের কাছে চালের পর্যাপ্ত মজুত নেই। চাইলে সরকারের বিভিন্ন সংস্থা খতিয়ে দেখতে পারে।

সরকার কী করছে

চাল মজুতের এসব অদৃশ্য পকেটের খবর সরকারের নীতিনির্ধারকেরা ভালো করেই জানেন।

এ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে খাদ্য মন্ত্রণালয়ের সচিব ড. মোছাম্মৎ নাজমানারা খানুম বলেন, ‘সরকারের মজুত কমেছে এটা সত্যি। তবে বেসরকারি খাতে বিভিন্ন পকেটে চাল রয়েছে, সেই তথ্য সরকারের কাছে আছে।’

কার কাছে কত মজুত, তথ্য তিনি দিতে না পারলেও জানান, মজুতের পকেটগুলো মনিটর করা হচ্ছে।

তিনি বলেন, মজুত ও সংরক্ষণ নীতিমালা অনুযায়ী, চাল সরবরাহকারী একটি প্রতিষ্ঠান ১৫ দিনে যে চাল উৎপাদন করবে, তার পাঁচ গুণ চাল তিন মাস পর্যন্ত মজুত রাখতে পারে। আগে এই নিয়ম বহাল থাকলেও এখন বাজার পরিস্থিতির কারণে সরবরাহ বাড়াতে এই নীতিমালা সংশোধন করে সরকার তা এক মাসে নামিয়ে এনেছে।

সংশ্লিষ্টরা জানিয়েছেন, মজুতদাররা কেউ নীতিমালার সংশোধনী মানছেন না। এমনকি কারা কোথায় কতদিন বা কত মাস চাল ধরে রাখছেন, তার তথ্যও সরকার সুনির্দিষ্টভাবে জানে না।

তাছাড়া বেসরকারি খাতে হস্তক্ষেপে সরকারের আইনি সীমাবদ্ধতা আছে। দুর্বলতা আছে রাষ্ট্রীয় মজুত তলানিতে নামারও। কারণ বাজার নিয়ন্ত্রণে সরকারের বড় অস্ত্র হচ্ছে বাফার মজুত। এসব কারণে সরকার মজুতদারির বিরুদ্ধে কঠোর হতে পারছে না। ফলে বিকল্প ব্যবস্থা হিসেবে এখন চাল আমদানিতে যেতে হচ্ছে।

পদক্ষেপে কার কোথায় কোথায় ঘাটতি

ধান-চাল উৎপাদনে সঠিক তথ্যের অভাব, অভ্যন্তরীণ সংগ্রহের মজুত কমে যাওয়া এবং বাজার ব্যবস্থাপনায় দায়িত্বশীল প্রতিষ্ঠানগুলোর ভুল নীতির খেসারত দিচ্ছে ভোক্তারা।

সংশ্লিষ্টরা মনে করেন, সরকারের প্রতিষ্ঠানগুলো যার যার দায়িত্ব ঠিক সময়ে সঠিকভাবে পালন করলে দেশে চাল সংকটের সুযোগ তৈরি হতো না।

সংশ্লিষ্টদের মতে, ধান উৎপাদন নিয়ে কৃষি মন্ত্রণালয়ের প্রাক্কলনে ভুল ছিল। খাদ্য মন্ত্রণালয় উৎপাদন খরচের চেয়ে ধান ও চালের দাম কম ধরায় সরকারের খাদ্য সংগ্রহ লক্ষ্যমাত্রা অর্জনে ব্যর্থ হয়। অথচ সে সময় খোলা বাজারে ধানের দাম ছিল বাড়তি। ফলে সরকার নির্ধারিত মূল্যে চাল দিতে রাজি হয়নি মিলাররা। সরকার সরাসরি কৃষকদের কাছ থেকেও কেনার উদ্যোগ নেয়নি।

এ পরিস্থিতিতে চাল সংকটের পূর্বাভাস পায় সরকার। চাহিদা মেটাতে খোদ প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় থেকেই চাল আমদানির সবুজ সংকেত দেয়া হয় খাদ্য মন্ত্রণালয়কে।

গত বছর ১৩ জুলাই আমদানির অনুমোদন মিললেও অক্টোবর পর্যন্ত কোনো আমদানির উদ্যোগ নেয়নি খাদ্য মন্ত্রণালয়। আবার রাজস্ব কমে যাবে এমন আশঙ্কায় জাতীয় রাজস্ব বোর্ড করোনা পরিস্থিতিতে স্বপ্রণোদিত হয়ে ভোক্তা স্বার্থে শুল্ক কমানোর আগাম উদ্যোগ গ্রহণ করেনি। বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের এ বিষয়ক লিয়াজো পদক্ষেপে অনেক বিলম্ব ঘটে। আর চালসহ অন্যান্য নিত্যপণ্যের দাম নিয়ন্ত্রণে এ মন্ত্রণালয়ের বিরুদ্ধে তদারকি দুর্বলতার অভিযোগ তো আছেই। আবার আমদানির নিবন্ধন নিয়েও আমদানিকারকদের চাল আমদানিতে দীর্ঘসূত্রতার অভিযোগ রয়েছে।

বাংলাদেশ উন্নয়ন গবেষণা ইনস্টিটিউটের সাবেক গবেষণা পরিচালক ড. এম আসাদুজ্জামান বলেন, ‘আজকে চাল সংকটের দায় নিতে হবে খাদ্য মন্ত্রণালয়কে। তারা যদি ওই সময় থেকে আমদানি প্রক্রিয়া শুরু করত, তাহলে সরকারের মজুত পরিস্থিতিও এতোটা খারাপ হতো না। বাজারে অস্থিরতা তৈরি হতো না। পাশাপাশি আন্তর্জাতিক বাজার থেকেও তখন কম দামে চাল আমদানি করা সম্ভব হতো। যার সুফল পেত ভোক্তারা।’

তবে এ অভিযোগের সঙ্গে ভিন্নমত পোষণ করেন খাদ্য মন্ত্রণালয়ের সচিব ড. মোছাম্মৎ নাজমানারা খানুম। তিনি বলেন, ‘এটা ঠিক, আমরা আগেই আমদানির অনুমতি নিয়েছিলাম। কিন্তু একই সঙ্গে আমাদের কৃষকের স্বার্থও বিবেচনায় রাখতে হয়েছে। তারা যাতে ধানের ভালো দাম পায়, সে দিকটিও সরকার গুরুত্ব দিয়েছে। এর জন্যই চাল আমদানিতে এই দীর্ঘসূত্রতা।

‘তাছাড়া করোনা পরিস্থিতিতে বিশ্বের সর্বত্র যখন আমদানি-রফতানিতে একটা অচলাবস্থা চলেছে, সেখানে একটু সময় লাগতেই পারে। তবে আমরা বসে ছিলাম না।’

খাদ্য সচিব জানান, এরই মধ্যে সরকারি পর্যায়ে ভারত থেকে চাল আমদানির সিদ্ধান্ত চূড়ান্ত করা হয়েছে। আগামী ১৫-২০ দিনের মধ্যে দেড় লাখ টন চাল দেশে আসবে। সেই সঙ্গে বেসরকারি খাতেও ২৮টি প্রতিষ্ঠানকে আমদানির নিবন্ধন দেয়া হয়েছে। সেই চাল আসা শুরু হয়েছে।

৫ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত দেশে ৭৭ হাজার টন চালের এলসি খোলা হয়। আর নিস্পত্তি হয় ৬১ হাজার টনের। এখন নিয়মিত বিরতিতে চাল আসবে। এতে দামও তুলনামূলক কমে আসবে।

আমদানির নিবন্ধন নেয়া সত্ত্বেও চাল আনতে দীর্ঘসূত্রতার কারণ জানতে চাইলে বাংলাদেশ রাইস এক্সপোর্টার্স অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি শাহ আলম বাবু বলেন, ‘৬২ শতাংশ আমদানি শুল্ক দিয়ে দেশে সেই চাল কত দামে বিক্রি করব? যদিও শুল্ক কমানো হয়েছে, তবে সঠিক সময়ে তা করা হয়নি। আবার যেটুকু কমানো হয়েছে, তাতে বাজারে চালের দাম কাঙ্ক্ষিত মাত্রায় রাখা কঠিন। এই শুল্ক হার ২০ শতাংশের নিচে নির্ধারণ হওয়া উচিত ছিল।’

আমদানির দীর্ঘসূত্রতার পেছনে তিনি খাদ্য মন্ত্রণালয়কেই দোষারোপ করেন।

যে কারণে কমল সরকারের মজুত

গত বছর ১৪ অক্টোবর দেশে খাদ্যশস্যের মোট মজুতের পরিমাণ ছিল ১১ লাখ ৯৫ হাজার টন। এর মধ্যে চালের মজুত ছিল ৮ লাখ ৮৩ হাজার টন। তবে করোনা মহামারি ও কয়েক দফা বন্যায় ক্ষতিগ্রস্তদের খাদ্য সহায়তা দেয়ায় খাদ্যশস্য মজুত কমেছে।

গত ২০১৯-২০ অর্থবছরে সরকার এ খাতে চাল বিতরণ করেছে ২ লাখ ৭৭ হাজার টন। এ ছাড়া রোহিঙ্গা ক্যাম্পসহ অন্যান্য খাতেও চাল বিতরণ করায় মজুত নেমে এসেছে ৫ লাখ টনে।

খাদ্য মন্ত্রণালয় গত বছর ২৬ এপ্রিল থেকে ১৫ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত মজুত বাড়াতে ১০ লাখ টন সিদ্ধ চাল কেনার লক্ষ্য নিলেও কিনতে পেরেছিল ৬ লাখ ৮০ হাজার টন। একইভাবে দেড় লাখ টন আতপ চাল কেনার লক্ষ্য নিয়ে কিনতে পারে ৯৯ হাজার টন। বোরো ধান কেনার লক্ষ্যমাত্রা ধরেছিল ৮ লাখ টন। কিন্তু কিনতে পেরেছে মাত্র ২ লাখ ২০ হাজার টন, যা লক্ষ্যমাত্রার তুলনায় ৭২ দশমিক ৫ শতাংশ কম।

এই ধান চাল আকারে ধরা হলে অভিযান মৌসুমে সরকার মোট চাল সংগ্রহ করতে পারে ৮ লাখ ৩১ হাজার ৪৬১ টন। এর বাইরে ২০১৯-২০ অর্থবছরে মোট চাল আমদানি হয়েছে মাত্র ৪ হাজার টন। এসব মিলে চালের মজুত কিছুটা বাড়লেও তা গুদামে বেশি দিন স্থায়ী হয়নি। অর্থাৎ সরকারের মজুত বিভিন্ন উন্নয়ন সহায়তার কারণে প্রতিনিয়ত কমতে থাকে।

বাংলাদেশ অটো রাইস মিল ওনার্স অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি এ কেএ ম খোরশেদ আলম খান বলেন, ‘এবার ধানের সরবরাহ প্রথম থেকেই কম ছিল। আগে প্রতিদিন ৫০ গাড়ি ধান কেনা হতো। এবার তা ১০ গাড়িও পাইনি। ফলে কৃষক পর্যায়ে ধানের দাম ছিল বেশি। পণ্যের দাম বাড়া-কমা নির্ভর করে উৎপাদন ও সরবরাহ পরিস্থিতির ওপর। সরবরাহ কমে গেলে দাম বাড়ে। এখন সেটাই হচ্ছে।’

  • সংবাদ সংলাপ/এমএস/সকা

Sharing is caring!