নিজস্ব প্রতিবেদক :

প্রায় দেড় যুগ আগে রাজধানীর বঙ্গবন্ধু অ্যাভিনিউয়ে আওয়ামী লীগের জনসভায় গ্রেনেড হামলায় যাবজ্জীবন দণ্ড পাওয়ার আড়াই বছর পর গ্রেপ্তার মো. ইকবাল জঙ্গি সংগঠন হরতাকুল জিহাদের সদস্য বলে জানিয়েছে র‌্যাব।

তার রাজনৈতিক জীবনের শুরু অবশ্য ছাত্রদল দিয়ে। ১৯৯১ সালে বিএনপি ক্ষমতায় আসার পর তিনি যোগ দেন ছাত্রসংগঠনটিতে।

১৯৯৪ সালে ঝিনাইদহ কে সি কলেজ ছাত্র সংসদে ছাত্রদলের প্যানেল থেকে ভোটে দাঁড়িয়ে তিনি সদস্য নির্বাচিত হন। তবে পড়াশোনা শেষ না করেই পরের বছর পাড়ি জমান মালয়েশিয়ায়।

দেশে ফেরেন ১৯৯৮ সালে। এসে ফোনের দোকান দেন ঝিনাইদহে। এলাকার এক উগ্রবাদীর সঙ্গে পরিচয় হওয়ার পর ২০০১ সালে যোগ দেন জঙ্গি সংগঠন হরকাতুল জিহাদে।

ওই বছরই পরিচয় হয় ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলা মামলায় মৃত্যুদণ্ড পাওয়া জঙ্গি নেতা মুফতি আবদুল হান্নানের সঙ্গে। একপর্যায়ে তিনি ঘনিষ্ঠ হয়ে ওঠেন তার।

র‌্যাব জানাচ্ছে, শেখ হাসিনার ওপর গ্রেনেড হামলা চালাতে পরিকল্পনার যে বৈঠকগুলো হয়েছে, তার কয়েকটিতে উপস্থিত ছিলেন ইকবাল। হামলার সময় তিনি গ্রেনেড চার্জও করেন।

ওই হামলায় শেখ হাসিনা বেঁচে গেলেও মারা যান ২৪ জন। কয়েক শ নেতা-কর্মী আহত হন।

গ্রেনেড হামলা
২১ আগস্টে রাজধানীতে আওয়ামী লীগের জনসভায় শেখ হাসিনাকে লক্ষ্য করে গ্রেনেড হামলা হয়। ফাইল ছবি

র‌্যাব বলছে, হামলার পর পর নিজের জেলা ঝিনাইদহে চলে যান ইকবাল।

বিএনপি শাসনামলে সে সময় আইনশৃঙ্খলা বাহিনী তাকে গ্রেপ্তারে কোনো চেষ্টাই করেনি। নিজের পরিচয় লুকাতে তিনি কখনও রিকশার মিস্ত্রি, কখনও নিরাপত্তাকর্মী, কখনও দিনমজুরের বেশ ধারণ করে থাকতেন।

২০০৭ সালের জানুয়ারিতে জরুরি অবস্থা ঘোষণা এবং সাবেক তত্ত্বাবধায়ক সরকারের আমলে মামলাটির নতুন করে তদন্ত শুরু হয়। ওই বছরে ৯ জুন বিএনপি-জামায়াত জোট সরকারের উপমন্ত্রী আবদুস সালাম পিন্টুসহ বেশ কয়েকজনকে আসামি করে প্রতিবেদন দেয়া হয়।

সেই বছরই আবার শ্রমিক হিসেবে মালয়েশিয়ায় পাড়ি জমান ইকবাল। সেখানে প্রথমে সেলিম ও পরে জাহাঙ্গীর নাম ধারণ করেন তিনি।

গত নভেম্বরে অবৈধ শ্রমিক হিসেবে চিহ্নিত হলে তাকে ফেরত পাঠায় মালয়েশিয়া সরকার।

র‌্যাব বলছে, দেশে এসে উত্তরার দিয়াবাড়ি এলাকায় আত্মগোপন করে আবার সমমনা উগ্রবাদীদের সঙ্গে যোগাযোগের চেষ্টা শুরু করেন ইকবাল। আর এই চেষ্টা করতে গিয়েই গোয়েন্দাদের জালে ধরা পড়েন তিনি।

র‌্যাব মহাপরিচালক চৌধুরী আবদুল্লাহ আল মামুন সংবাদ সম্মেলন করে জানান, মঙ্গলবার ভোরে রাজধানীর দিয়াবাড়ি এলাকাতেই ধরা পড়েছেন ইকবাল।

ইকবালের গ্রেপ্তারের বিষয়টি সকালেই এসএমএস করে গণমাধ্যমকর্মীদের জানিয়ে দেয় আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীটি। পরে রাজধানীর কারওয়ান বাজারে সংবাদ সম্মেলন করে বিস্তারিত জানানো হয়।

তবে গ্রেনেড হামলার পর চার বছর আর গত নভেম্বর দেশে ফিরে ইকবাল কার ছত্রচ্ছায়ায় ছিলেন, তিনি অবৈধ শ্রমিক হিসেবে কীভাবে মালয়েশিয়ায় গেলেন, সেসব বিষয়ে এখনও বিস্তারিত জানতে পারেনি র‌্যাব।

মহাপরিচালক চৌধুরী আবদুল্লাহ আল মামুন বলেছেন, তারা ইকবালকে গ্রেপ্তারের পর প্রাথমিকভাবে জিজ্ঞাসাবাদ করে যেটুকু তথ্য পেয়েছেন, সেগুলোই জানিয়েছেন। আরও যেসব জিজ্ঞাসা আছে, সেগুলো কারাগারে পাঠানোর পর জানার চেষ্টা করা যাবে।

বিএনপি শাসনামলে শেখ হাসিনাকে হত্যাচেষ্টার অংশ হিসেবে চালানো এই গ্রেনেড হামলায় যাদের সাজা হয়েছে, তাদের মধ্যে হরকাতুল জিহাদের জঙ্গি সদস্য ছাড়াও রয়েছেন বেশ কয়েকজন বিএনপির নেতা।

দণ্ডিত ব্যক্তিদের মধ্যে যাদের মৃত্যুদণ্ড হয়েছে তাদের মধ্যে আছেন বিএনপি-জামায়াত জোট সরকারের স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী লুৎফুজ্জামান বাবর, ওই সরকারের উপমন্ত্রী আবদুস সালাম পিন্টু, তার ভাই পলাতক মাওলানা তাজউদ্দিন, হানিফ পরিবহনের মালিক বিএনপির মনোনয়নপ্রত্যাশী মোহাম্মদ হানিফ।

মামলাটিতে মৃত্যুদণ্ড পেয়েছেন মোট ১৯ জন। সমসংখ্যক আসামি পেয়েছেন যাবজ্জীবন কারাদণ্ডও।

এদের মধ্যে আছেন বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান, বেগম খালেদা জিয়া প্রধানমন্ত্রী থাকাকলে তার রাজনৈতিক সচিব হারিছ চৌধুরী, বিএনপির সাবেক সংসদ সদস্য কাজী শাহ মোফাজ্জল হোসাইন কায়কোবাদ, ঢাকা সিটি করপোরেশনের সাবেক ওয়ার্ড কাউন্সিলর বিএনপি নেতা আরিফুল ইসলাম।

  • সংবাদ সংলাপ/এমএস/বি

Sharing is caring!