নোয়াখালী প্রতিনিধি :
ফেনী-লক্ষীপুর সড়কের নোয়াখালী চৌমুহনীতে যাত্রীবাহী যমুনা হাই-ডিলাক্স টান্সপোর্টের গাড়ীতে প্রকাশ্যে চাদাঁবাজিতে অতিষ্ঠ হয়ে মালিক সমিতি পরিবহন বন্ধ করে দিয়েছে। এতে ফেনী-লক্ষীপুরের পথে যাতায়াতকারী যাত্রীরা দুর্ভোগে পড়েছেন।

প্রশাসনের কাছে অভিযোগ করার পরও চাঁদাবাজি অব্যাহত থাকায় বৃহস্পতিবার সকাল ১০টা থেকে যমুনা হাই-ডিলাক্স টান্সপোর্টের ৪০টি গাড়ি চলাচল বন্ধ করে দিয়েছে শ্রমিক ও মালিকপক্ষ।

যমুনা হাই-ডিলাক্স ট্রান্সপোর্ট লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মো. আজিজুর রহমান মানিক বলেন, ফেনী-লক্ষ্মীপুর মহাসড়কে চলাচলকারী যমুনা হাই-ডিলাক্স টান্সপোর্ট লিমিটেডের গণপরিবহনে নোয়াখালীর বেগমগঞ্জ চৌমুহনী এলাকায় গত ১৬ ফেব্রুয়ারী সকাল থেকে চিহিৃত চাঁদাবাজ বেলাল হোসেন ও আমির হোসেন দয়ালের নেতৃত্বে প্রতি গাড়ি থেকে জোরপূর্বক ৫০০ থেকে ৬০০ টাকা চাদাঁ আদায় করে আসছে। ওইদিন বিকালে শ্রমিকরা চাঁদাবাজদের বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গড়ে তোলার চেষ্টা করলে চাঁদাবাজ সন্ত্রাসীরা কোম্পানীর ১২টি গাড়ি আটক করে গাড়ির চাবি নিয়ে যায় এবং শ্রমিকদের মারধর করে।

ওইদিন সন্ধ্যায় মালিক সমিতি ৯৯৯ নাম্বারে জানালে বেগমগঞ্জ থানার ওসি কামরুজ্জামান সিকদারের নির্দেশে থানা পুলিশ ও বেগমগঞ্জ টিআই কামরুল ইসলামের সহযোগিতায় গাড়িগুলোর চাবি উদ্ধার করা হয়।

পুলিশ প্রশাসনের নজরে ঘটনাটি আসলেও সড়কে চাঁদাবাজি অব্যাহত থাকায় গত ২৩ ফেব্রুয়ারী বেগমগঞ্জ মডেল থানায় চাঁদাবাজদের বিরুদ্ধে লিখিত অভিযোগ দেন যমুনা হাই-ডিলাক্স টান্সপোর্টের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মো. আজিজুর রহমান। এরপরও চাঁদাবাজি বন্ধ হয়নি।

এদিকে যমুনা হাই-ডিলাক্স টান্সপোর্টের পরিবহনগুলো বন্ধ করে দেওয়ায় ফেনী-লক্ষ্মীপুর রুটের সাধারণ যাত্রীদের র্দুভোগ দেখা দিয়েছে।

বুধবার বিকালে যমুনা হাই-ডিলাক্স টান্সপোর্ট লিমিটেড মালিক সমিতির নেতৃবৃন্দ নোয়াখালীর অতিরিক্ত পুলিশ সুপার দীপক ষোতি খিসার সাথে সাক্ষাৎ করে সড়কে চাঁদাবাজি বন্ধ ও গাড়ি এবং শ্রমিকদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করার দাবি জানান।

বৃহস্পতিবার সকাল থেকে ফেনী-লক্ষ্মীপুর মহাসড়কে যমুনা হাই-ডিলাক্স টান্সপোর্ট লিমিটেডের গণপরিবহন চলাচল শুরু হয়। সকাল ১০টার দিকে আবারো চৌমুহনী প্রধান সড়কে গাড়িগুলো থামিয়ে চাঁদা আদায় এবং থানায় অভিযোগ করায় শ্রমিকদের মারধর শুরু করে চাঁদাবাজরা। এরপর গাড়িগুলো বন্ধ করে দেয় শ্রমিক এবং মালিক পক্ষ।

বেগমগঞ্জ মডেল থানার ওসি কারুজ্জামান সিকদার জানান, যমুনা হাই-ডিলাক্স টান্সপোর্টের মালিকদের দুই পক্ষের পার্টনারশীপ নিয়ে সমস্যা আছে। পরিবহনের জিপি উঠানো নিয়ে তাদের বিরোধ তৈরী হয়। আগামীকাল (শুক্রবার) বিকালে তাদের নিয়ে সমাধানের উদ্দেশ্যে বসা হবে।

অতিরিক্ত পুলিশ সুপার দীপক ষোতি খিসা জানান, যমুনা হাই-ডিলাক্স কোম্পানীর কয়েকজন মালিক বিষয়টি জানিয়েছেন। বেগমগঞ্জ থানার ওসিকে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে এটা বন্ধ করতে। ওসি বিষয়টি দেখবেন।

  • সংবাদ সংলাপ/এমএস/বি

Sharing is caring!