নিজস্ব প্রতিবেদক :

নেপালের বিপক্ষে প্রথম ম্যাচে জিতলেও সতর্ক বাংলাদেশ। যে ঘাটতিগুলো প্রথম ম্যাচে ছিল সেগুলো পূরণ করে পরের ম্যাচে আরও শক্তিশালী হয়ে মাঠে নামতে চান জামাল ভূঁইয়ারা। অন্যদিকে প্রথম ম্যাচের ভুলগুলো শুধরে জিততে চায় নেপাল।

মুজিববর্ষ আন্তর্জাতিক প্রীতি ম্যাচ সিরিজের দ্বিতীয় ও শেষ ম্যাচে নেপালের বিপক্ষে মঙ্গলবার বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামে নামছে বাংলাদেশ।

প্রথম ম্যাচে ২-০ ব্যবধানে হারিয়ে বাংলাদেশের প্রথম লক্ষ্য ছিল দীর্ঘ ৮ মাস পরে খেলতে নামা ফুটবলারদের রিকভারি।

কোনো ইনজুরি ছাড়াই রিকভার করার পর দল দ্বিতীয় ম্যাচের জন্য প্রস্তুত, এমনটাই মনে করছেন করোনায় আক্রান্ত জেমি ডের অনুপস্থিতিতে জাতীয় দলের হাল ধরা স্টুয়ার্ট পল ওয়াটকিস।

‘প্রথম ম্যাচের পর ফোকাস খেলোয়াড়দের রিকভারির ওপরে ছিল। ৯ মাস পর প্রথমবার ছেলেরা খেলতে নেমেছিল। ম্যাচের পর প্রায় ৪৮ ঘণ্টা খেলোয়াড়দের রিকভারির দিকে মনোযোগ দিয়েছি আমরা। প্রস্তুতিতে তেমন ভিন্নতা নেই। আমি আর জেমি বাংলাদেশে আসার পর প্রতি ম্যাচে যেমন প্রস্তুতি নিয়েছি, এবারও তার ব্যতিক্রম হয়নি’, বলেন ওয়াটকিস।

প্রথম ম্যাচে ফিটনেসে যথেষ্ট ঘাটতি দেখা গেছে নেপাল দলে। দ্বিতীয় ম্যাচে যে নেপাল আরও কঠিন হয়ে ফিরবে সে বিষয়ে সতর্ক সহকারী কোচ ওয়াটকিস।

বলেন, ‘গেম ম্যানেজমেন্টের দিকে নজর দিতে চাই আমরা। আগের ম্যাচে প্রথমার্ধেই ৩/৪ গোলে এগিয়ে যেতে পারতাম। সেটা হলে দ্বিতীয়ার্ধ আরও সহজ হয়ে যেত। আগের ম্যাচে মন্দের চেয়ে ভালো দিকগুলো বেশি ছিল। আমি নিশ্চিত, এবার নেপাল আরও শক্তিশালী হয়ে মাঠে নামবে। তবে আমরা সেরা ফল পাওয়ার চেষ্টা করব।

জেমি না থাকলেও দলের সার্বিক আপডেট নিয়ে নিয়মিত যোগাযোগ থাকছে জানান ওয়াটকিস।

বলেন, ‘শেষ দুইদিনে জেমি আমার মাধ্যমেই যোগাযোগ করেছে। ট্রেনিং সেশন কেমন হবে, কোন ব্যাপারগুলোয় মনোযোগ দেবো এসব নিয়ে কথা হয়েছে তখন।’

স্বাগতিকদে প্রতিপক্ষ নেপাল চায় প্রথম ম্যাচের ভুল শুধরে জয় নিয়ে দেশে ফিরতে। করোনামুক্ত হয়ে দলের সঙ্গে যোগ দিয়েছেন অভিজ্ঞ ডিফেন্ডার রনজিৎ ধিমাল। এটা বাড়তি শক্তি যোগাবে বলে মনে করেন নেপাল দলের কোচ বাল গোপাল মহারাজন।

তিনি বলেন, ‘প্রথম ম্যাচের পরের তিন দিন দ্বিতীয় ম্যাচের প্রস্তুতি নিয়েছি। ভালো পারফরম্যান্সের দিকে মনোযোগ দিচ্ছি। প্রথম ম্যাচের হার থেকে অনেক কিছু শিখেছি। ডিফেন্ডিং থার্ডে ভুল করে গোল খেয়েছিলাম। আশা করি, মঙ্গলবার পুরো দল ভালো খেলবে। ব্যক্তিগত ও দলীয়ভাবে ভালো খেলবে। ইতিবাচক মানসিকতা নিয়ে খেলার জন্য দল প্রস্তুত।

‘ধিমাল করোনাভাইরাস নেগেটিভ হয়ে ফিরেছে। আমি মনে করি, তার ফেরাটা দলের জন্য অনুপ্রেরণার হবে। দল উপকৃত হবে। আগামীকালের ম্যাচের জন্য ছেলেরা প্রস্তুত।’

সিরিজের শেষ ম্যাচে জয় পেতে মরিয়া নেপালের অধিনায়ক কিরণ চেমজংও।

বলেন, ‘ম্যাচটি দুই দলের জন্যই কঠিন হতে যাচ্ছে। অবশ্যই জয়ের জন্য নামব। কেননা, আমরা প্রথম ম্যাচ হেরেছি। দ্বিতীয় ম্যাচের জন্য তিন দিন প্রস্তুতি নেওয়ার সময় পেয়েছি। আমরা প্রস্তুত।’

  • সংবাদ সংলাপ/এমএস/দু

Sharing is caring!