নিজস্ব প্রতিবেদক :

হেফাজতে ইসলাম নেতা মামুনুল হক যে নারীকে নিয়ে সোনারগাঁয়ের রয়্যাল রিসোর্টে ‘রিফ্রেশ’ হতে গিয়েছিলেন, সেই নারীর বড় ছেলে আব্দুর রহমান জামির একটি ভিডিওবার্তা ছড়িয়ে পড়েছে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে।

কিশোর জামির অভিযোগ, মামুনুল হকের মধ্যে কোনো মনুষ্যত্ব বোধ নেই। তিনি নিজের অসৎ উদ্দেশ্য পূরণ করতে জামির বাবা শহিদুল ইসলাম ও মা জান্নাত আরা ঝর্নার মধ্যে পরিকল্পিতভাবে দূরত্ব তৈরি করেন। এ ক্ষেত্রে শহিদুল ইসলামের ‘অন্ধ আনুগত্যকেও’ ব্যবহার করেছেন মামুনুল।

মামুনুল হক গত শনিবার এক নারীকে নিয়ে সোনারগাঁয়ের রয়্যাল রিসোর্টে যাওয়ার পর স্থানীয় লোকজন তাকে ঘেরাও করে। মামুনুল ওই নারীকে নিজের দ্বিতীয় স্ত্রী দাবি করলেও তার নাম, শ্বশুরবাড়ি, শ্বশুরের নাম সম্পর্কে যে তথ্য দিয়েছেন, তার সঙ্গে সেই নারীর দেয়া তথ্যের কোনো মিল নেই।

মামুনুল বলেছেন, তার কথিত দ্বিতীয় স্ত্রীর নাম আমেনা তইয়্যেবা। বাড়ি খুলনায়, শ্বশুরের নাম জাহিদুল ইসলাম।

তবে সেই নারী জানিয়েছেন তার নাম জান্নাত আরা ঝর্না, বাবার নাম অলিয়র, গ্রামের বাড়ি ফরিদপুরের আলফাডাঙ্গায়।

দুইজনের তথ্যের এই গরমিলের মধ্যেই বেশ কয়েকটি মোবাইল ফোনে কথোপকথনের অডিও সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ফাঁস হয়। এর একটিতে বোঝা যায় মামুনুল তার চার সন্তানের জননী স্ত্রীর সঙ্গে কথা বলছিলেন। সেখানে তিনি বলেন, সেই নারী তার পরিচিত শহীদুল ইসলামের স্ত্রী। ঘটনার কারণে চাপে পড়ে তাকে স্ত্রী পরিচয় দিতে বাধ্য হয়েছেন।

পরে আরেকটি কথোপকথন ফাঁস হয়, যা মামুনুলের সঙ্গে তার রিসোর্টের সঙ্গীনির মধ্যকার বলে প্রতীয়মান হয়। সেখানে সেই নারী জানান, তিনি পুলিশের জিজ্ঞাসাবাদে তার মায়ের একটি বন্ধ মোবাইল নম্বর দিয়েছেন। আর অন্য একজন যখন তাকে কোথায় বিয়ে হয়েছে জিজ্ঞেস করেছে, তখন তিনি বলেছেন, এটা জানেন না। মামুনুলের সঙ্গে কথা বলে নেবেন।

আরও একটি কথোপকথনে বোঝা যায় মামুনুলের বোন কথা বলেছেন হেফাজত নেতার চার সন্তানের জননী স্ত্রীর সঙ্গে। তিনি তাকে বুঝিয়েছেন, কেউ যদি তাকে ফোন করে, তাহলে তিনি যেন বলেন, তিনি বিয়ের অনুমতি দিয়েছেন এবং তার শাশুড়ি এই বিয়ের আয়োজন করেছেন।

এরপর মামুনুল ফেসবুক লাইভে এসে বলেন, তিনি বিয়ে করেছেন তার ঘনিষ্ঠ বন্ধুর স্ত্রীকে। পারিবারিকভাবেই এই বিয়ে হয়েছে।

পরদিন ফেসবুক স্ট্যাটাসে তিনি একে একটি মানবিক বিয়ে উল্লেখ করে লেখেন, সেই নারীর সঙ্গে তার স্বামীর ছাড়াছাড়ির আগে তিনি সংসার টেকানোর চেষ্টা করেছেন। ছাড়াছাড়ি হয়ে যাওয়ার পর মেয়েটি দুর্দশায় পড়ে যায়। সে সময় তিনি বিয়ে করে নিয়েছেন তাকে।

এরই মধ্যে ফেসবুকে ভিডিও বার্তা দিয়েছেন ঝর্ণা ও শহীদুলের বড় ছেলে আব্দুর রহমান জামি। তিনি বলেন, ‘আমি তো অনেক অলরেড… হয়ে গেছি। অনেক কিছু শিখছি, অনেক কিছু জানছি। একটা ম্যাচ্যুউর ভাব আইছে। আমি কিছুটা সহ্য করে নিতে পারি। কিন্তু আমার তো একটা ছোট ভাই আছে। ১৩/১৪ বছর বয়স। কেবল উঠতি বয়স। এমন সময় কত মানুষের কথা শোনা লাগতিসে। সমাজের সামনে সে মুখ দেখাতে পারতেসে না।’

আক্ষেপ করে জামি বলেন, ‘আমার ছোটভাইটা কালকে, রাতে যখন এ ঘটনাটা ঘটল, কোনোদিন আমি দেখি নাই যে রাত ৩টা-৪টা পর্যন্ত জেগে রইছে। কালকে চোখে কোনো ঘুমই নাই। টোট্যালি ওটা নিয়ে মনে হচ্ছে ও মেন্টালি শকড। ও বাসা থেকে বেড়োয়ে গেছিল, যে আমি বাসায় থাকলে কী উল্টা পাল্টা করব আমি নিজেও জানি না, এ কারণে বেড়োয়ে গেছে।’

এ ঘটনার জন্য নিজের বাবা শহিদুলকেও দায়ী করেন জামি। তিনি বলেন, ‘এটা আমি বলব যে, আমার বাবার কর্মের ফল। আমার বাবা এই মানুষটাকে অন্ধের মতো বিশ্বাস করত। পাগলের মতো ভালোবাসত।

‘ওই লোকটা (মামুনুল হক)… কিছুদিন আগে মোল্লাদের একটা মাহফিল হয়েছিল। ওখানে পুলিশ তাকে ঢুকতে দেবে না। সে একটা জায়গায় লুকায় ছিল, আমার বাবা সেটা দেখে এসে কীভাবে কানছে। তার আগেই আমি সেটা জানছি যে আমার মার সাথে তার সম্পর্ক আছে।

‘আমি তখন হাসতেছিলাম যে, এই লোকটা (শহীদুল) তার (মামুনুল) জন্য পাগলের মতো কানতেছে, এভাবে অঝর ধারায় কানতেসে আর ওই লোক এই লোকটার সাথেই বিশ্বাসঘাতকতা করতেসে। তারপরে যখন ওনাকে জেলে নিলো, মাওলানা মামুনুল হককে জেলে নিলো তখন আমার বাবা বলেছিল পুলিশের কাছে, থানার ওসি কামরুজ্জামানকে যে, তুমি আমাকে রেখে ওই লোকটারে ছাইড়ে দাও। কতটা ভালোবাসলে মানুষ এই কথাটা বলতে পারে। আর সেই লোকটা এভাবে গাদ্দারি করল।’

শহীদুল ইসলাম তার দ্বিতীয় স্ত্রী সালমা সুলতানাকে নিয়ে খুলনার সোনাডাঙ্গা থানার শাহীনূর জামে মসজিদ সড়কের একটি ভাড়া বাসায় থাকেন। প্রথম স্ত্রী জান্নাত আরা ঝর্নার সঙ্গে বছর তিনেক আগে শহীদুলের বিয়ে বিচ্ছেদ হলেও জামিসহ ওই ঘরের দুই সন্তান বাবার সঙ্গেই আছে। শহীদুল ওই এলাকার তা’লীমুল মিল্লাত রহমাতিয়া ফাযিল মাদ্রাসার শিক্ষক ও খালাসি মসজিদের ইমাম।

বাবা-মায়ের বিয়ে বিচ্ছেদের প্রসঙ্গ উল্লেখ করে জামি ফেসবুক ভিডিওবার্তায় বলেন, ‘আরো আগের ঘটনা, যখন ডিভোর্স হয়নি। আমি সেই সময় অনেকটা ছোট, আমার ছোটভাই অনেক ছোট। ও দুগ্ধ শিশু ছিল। তখন একবার আমার বাবা বাসায় ছিলেন না, তখন আমি ছিলাম। আমি ঘুমায় ছিলাম বা বাহিরে ছিলাম। তখন নাকি আমার মা আমার ছোট ভাইকে দুগ্ধ পান করাচ্ছিল। তখন উনি (মামুনুল) আমার মায়ের রুমে হুট করে ঢুকে যায় এবং একটা কুপ্রস্তাব দিয়েছিল।

‘কিন্তু আমার মা সেটা প্রত্যাখ্যান করেছিল। না এটা সম্ভব না, আপনি তো ঠকাচ্ছেন আপনার কাছের মানুষটাকে, বন্ধুকে। সে তখন ফিরে এসেছিল। তখন থেকেই তার মনে একটা কামুক ভাব ঢুকে গেছে। সে লোভ সামলাতে পারতেছিল না। সে সব কিছুর একটা সুযোগে ছিল। কিন্তু এত তাড়াতাড়ি হয়ে যাবে সে এটা বুঝতে পারেনি। যখনই সে সুযোগ পাইসে, এনাদের (শহীদুল-ঝর্ণা) মধ্যে ডিস্ট্যান্স বাড়ায় দিছে।’

মামুনুলের অসৎ উদ্দেশ্য তুলে ধরে জামি বলেন, ‘কোনো বিষয়ে স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে তো ঝগড়া হবেই। সে (মামুনুল) তখনই নক করছে। তখনই দুজনের মধ্যে আরও ডিস্ট্যান্স বাড়ায় দিছে। এভাবে করে সে একটা পরিবারের খুশি, ভালোবাসা, একটা পরিবারের মধ্যে যে মিলমিশ একটা সম্পর্ক পুরোপুরি সে ধ্বংস করে দিছে। আরও এভাবে কত মানুষের, পরিবারের ভালোবাসা সে ধ্বংস করছে এর কোনো ঠিক নাই।’

হেফাজতে ইসলাম নেতা মামুনুল হকের বিচার দাবি করেন জামি। তিনি বলেন, ‘এখানে আমি আশা করব, আমি বাংলাদেশের মানুষের কাছে আশা করব এর যেন সঠিক বিচার হয়, আপনারা কারো অন্ধ ভক্ত হয়েন না। কাউকে অন্ধভাবে বিশ্বাস কইরেন না। ক্যান, সবারই মুখোশের আড়ালে একটা চেহারা থাকে। এই লোকটা আলেম নামধারি একটা মুখোশধারী একটা জানোয়ার। এর মধ্যে কোনো মানুষত্ব নাই। সুযোগের সব সময় অপেক্ষায় থাকে। কাকে কীভাবে দুর্বল করা যায়। আমার আর কিছু বলার মতো ভাষা নাই।’

ভিডিওতে বক্তব্য দেয়া কিশোর যে আব্দুর রহমান জামি, সেটি নিশ্চিত করেছেন খুলনায় শহীদুল ইসলামের দ্বিতীয় স্ত্রী সালমা সুলতানা। তবে তিনি দাবি করেন, জামিকে ‘চাপ’ দিয়ে এমন বক্তব্য দেয়া হয়েছে। জামি এখন ঢাকায় আছেন বলেও জানান সালমা।

অন্যদিকে, জামির বাবা শহীদুল ইসলামও আছেন ঢাকায়। মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, ‘এ বিষয়ে আমি সাংবাদিকদের সঙ্গে কোনো কথা বলব না।’

  • সংবাদ সংলাপ/এমএস/বি

Sharing is caring!