নিজস্ব প্রতিবেদক :

দেড় যুগ আগে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার গাড়িবহরে হামলার ঘটনায় মামলা বাতিল চেয়ে এক আসামির আবেদন খারিজ করে দিয়েছে আপিল বিভাগ।

এর ফলে বিচারিক আদালতে এ মামলা চলতে কোনো বাধা নেই বলে জানিয়েছেন অতিরিক্ত অ্যাটর্নি জেনারেল এসএম মুনির।

মঙ্গলবার প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেনসহ চার বিচারপতির আপিল বেঞ্চ আবেদনটি খারিজ করে দেয়।

২০০২ সালে ধর্ষণের শিকার সাতক্ষীরায় এক মুক্তিযোদ্ধার স্ত্রীকে দেখতে যাওয়ার সময় তৎকালীন বিরোধী দলীয় নেতা ও বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার গাড়িবহরে হামলা করা হয়।

এ ঘটনার ১২ বছর পর হাইকোর্টের অনুমতি নিয়ে ২০১৪ সালে মামলা হয়। ২০১৭ সালে শুরু হয় বিচার।

বিচার শুরু হলে এ মামলার আসামি রাকিবুর রহমান সে সময়ে অপ্রাপ্ত বয়স্ক ছিল সুতরাং তার বিচার এ আদালতে চলতে পারে না উল্লেখ করে আবেদন করা হয়।

পরবর্তীতে বিষয়টি আপিল বিভাগ পর্যন্ত গড়ায়। আপিল বিভাগ আবেদনটি খারিজ করে দিল।

আপিল আবেদনের পক্ষে ছিলেন ব্যারিস্টার মাহবুব উদ্দিন খোকন। রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন অতিরিক্ত অ্যাটর্নি জেনারেল এসএম মুনীর।

অতিরিক্ত অ্যাটর্নি জেনারেল এসএম মুনির নিউজবাংলাকে বলেন, এ মামলাটি দীর্ঘায়িত করার জন্য বার বার আবেদন করা হচ্ছে। তারই অংশ হিসেবে এই আপিল হয়েছে। আজ আপিল বিভাগ আবেদনটি খারিজ করে দিয়েছেন। ফলে বিচারিক আদালতে এ মামলা চলতে আর কোন বাধা নেই।

মামলার বিবরণে জানা যায়, ধর্ষণের শিকার এক মুক্তিযোদ্ধার স্ত্রীকে দেখতে ২০০২ সালের ৩০ আগস্ট সাতক্ষীরার কলারোয়ায় যান আওয়ামী লীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনা।

সড়ক পথে ঢাকায় ফেরার পথে কলারোয়া উপজেলা বিএনপি অফিসের সামনে শেখ হাসিনার গাড়িবহরে হামলার ঘটনা ঘটে। শেখ হাসিনাকে লক্ষ্য করে গুলি ছোড়া হয়। বোমা বিস্ফোরণ ও গাড়ি ভাঙচুরের ঘটনাও ঘটে।

এরপর হাইকোর্টে আবেদন করে ২০১৪ সালে মামলা দায়ের করা হয়। ২০১৫ সালে এ ঘটনায় আদালতে চার্জশিট দেওয়া হয়।

মামলাটির আসামি রকিব ওরফে রাকিবুর রহমানের বয়স ঘটনার সময় ১০ বছর ছিল উল্লেখ করে হাইকোর্টে মামলা বাতিলে আবেদন করা হয়।

২০১৭ সালের ২৩ আগস্ট ওই আবেদনের স্থগিতাদেশ দিয়ে রুল জারি করে হাইকোর্ট। এ রুলের ওপর শুনানি শেষে আট অক্টোবর রুলটি খারিজ করে রায় দেয় হাইকোর্ট। এরপর হাইকোর্টের আদেশ স্থগিত চেয়ে আপিল করে আসামিপক্ষ।

  • সংবাদ সংলাপ/এমএস/স

Sharing is caring!