নোয়াখালী প্রতিনিধিঃ

নোয়াখালীর সোনাইমুড়ীতে অস্ত্রসহ আটককৃত তিন যুবককে ছেড়ে দেওয়ার অভিযোগ ও জব্দকৃত অস্ত্র খেলনা বলে চালিয়ে দেওয়ার ঘটনায় থানার ওসি তহিদুল ইসলামের বিরুদ্ধে জেলা পুলিশের পক্ষ থেকে তদন্ত কমিটি গঠন করার পর পুলিশ হেডকোয়াটার্সের মাধ্যমে নির্বাচন কমিশন থেকে তাকে দায়িত্ব থেকে অব্যহতি দেওয়া হয়েছে।

মঙ্গলবার সন্ধ্যায় নির্বাচন কমিশন উপ-সচিব (চলতি দায়িত্ব) মো. মিজানুর রহমান স্বাক্ষরিত এক প্রজ্ঞাপনে এ তথ্য জানানো হয়। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন জেলা পুলিশ সুপার মো. শহীদুল ইসলাম। এদিকে ঘটনার পর জেলা অতিরিক্ত পুলিশ সুপার দীপক জ্যোতি খিসাকে প্রধান করে গঠিত তিন সদস্য বিশিষ্ট তদন্ত কমিটিকে তিন কর্মদিবসের মধ্যে লিখিত প্রতিবেদন দিতে বলা হয়েছে।

প্রজ্ঞাপনে বলা হয়, ইউনিয়ন পরিষদ সাধারণ নির্বাচনকালীন প্রশাসনিক কারণে ওসি সোনাইমুড়ীকে প্রত্যাহার করা জন্য নির্বাচন কমিশন নির্দেশ দিয়েছেন। তাকে ওই দায়িত্ব থেকে প্রত্যাহার করে তার স্থলে একজন উপযুক্ত কর্মকর্তা পদায়ন করে নির্বাচন সচিবালয়কে অবহিত করতে হবে। জানা গেছে, গত শুক্রবার দিবাগত রাত তিনটার দিকে উপজেলার বজরা এলাকা টহলে ছিল এএসআই গাজী সোহেল রানার নেতৃত্বে একদল পুলিশ। টহলকালে সন্দেহজনক ঘুরাঘুরি করায় জনিসহ তিন যুবককে আটক করা হয়। পরে তাদের শরীরের তল্লাশি চালিয়ে একটি অস্ত্র পাওয়া গেলে তাদের থানায় নিয়ে যায় পুলিশ। ওই যুবকদের ছাড়াতে ভোরে ওসির বাসভবনে আসেন একজন জনপ্রতিনিধি ও তার লোকজন। তারা বিষয়টি নিয়ে ওসির সঙ্গে কথা বলার পর শনিবার ভোর পাঁচটার দিকে আটককৃতদের ছেড়ে দেওয়া হয়।

এএসআই গাজী সোহেল রানা বলেন, শুক্রবার রাতে একটি চায়না খেলনা পিস্তলসহ তিন যুবককে আটক করা হয়। পরে ওই যুবকদের থানায় নিয়ে আসা হলে ভোর পাঁচটার দিকে ওসির নির্দেশে তিনি ওই যুবকদের ছেড়ে দেন।

  • সংবাদ সংলাপ/এসইউ/রা

Sharing is caring!