বিনোদন ডেস্ক  :

বিতর্ক পিছু ছাড়ছে না বলিউডের অভিনেত্রী কঙ্গনা রানাউতের। সম্প্রতি টুইটার কর্তৃপক্ষ কঙ্গনার আইডি নিষিদ্ধ করেছে। করোনাকে সাধারণ ফ্লু বলে সমালোচনায় পড়েছেন, করেছেন পশ্চিবঙ্গের নির্বাচন নিয়ে সাম্প্রদায়িক মন্তব্য, তাকে অনেকটাই কোনঠাসা করে ফেলেছে।

এবার নতুন করে আরেক বিতর্ক উঠেছে তার ব্যক্তিগত দেহরক্ষী কুমার হেগড়ের বিরুদ্ধে। হেগড়ের বিরুদ্ধে অভিযোগ ধর্ষণের। আন্ধেরির এক বিউটিশিয়ান সেই অভিযোগের পাশাপাশি করেছেন হেগড়ের বিরুদ্ধ প্রতারণার অভিযোগও।

ওই বিউটিশিয়ান বলেন, প্রায় আট বছর পরস্পরকে চেনেন তারা। গত বছর জুনে বিয়ের প্রস্তাব দিয়ে ওই নারীর সঙ্গে একাধিকবার যৌন সম্পর্ক স্থাপন করেন হেগড়ে। চলতি বছরের এপ্রিলে ওই নারীর থেকে মোটা টাকাও নেন হেগড়ে।

তারপর ওই নারীর সঙ্গে সব ধরনের যোগাযোগ বন্ধ করে দেন বলে অভিযোগ করেন।

কিছুদিন পর এক নারী ওই বিউটিশিয়ানকে কুমারের মা পরিচয় দিয়ে ফোন করে জানান, কুমারের অন্য একজনের সঙ্গে বিয়ে ঠিক হয়েছে। তাই কুমারের সঙ্গে কোনো রকম যোগাযোগ না রাখার কথা বলেন।

কঙ্গনার দেহরক্ষীর বিরুদ্ধে ধর্ষণের মামলা

ফোন করার পর কুমার হেগড়ের বিরুদ্ধে অভিযোগ করেন ওই বিউটিশিয়ান।

১৯ মে কুমারের বিরুদ্ধে ডিএন নগর থানায় এফআইআর করে মুম্বাই পুলিশ।

কঙ্গনার দেহরক্ষীর বিরুদ্ধে ধর্ষণের মামলা

ভারতীয় দণ্ডবিধির একাধিক ধারায় মামলা করা হয়েছে। তবে এখনও গ্রেপ্তার হয়নি কুমার হেগড়ে।

ব্যক্তিগত দেহরক্ষীর বিরুদ্ধে ওঠা অভিযোগ নিয়ে কোনো কথা বলেননি কঙ্গনা রানাউত।

  • সংবাদ সংলাপ/এসইউ/বি

Sharing is caring!