সংলাপ প্রতিবেদক :

সফরকারী নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে প্রথম টি-টোয়েন্টি ম্যাচ হেসে খেলে জিতবে বাংলাদেশ এমনটাই প্রত্যাশা ছিল ক্রিকেটপ্রেমীদের। ভক্তদের সেই আশা পূরণ করতে সক্ষম হয়েছে টাইগাররা। কিউইদের বিপক্ষে প্রথম টি-টোয়েন্টি ম্যাচ ৭ উইকেটে জিতেছে বাংলাদেশ।

তবে এদিন ৬১ রানের লক্ষ্যে নেমে শুরুটা ভালো হয়নি বাংলাদেশের। দ্বিতীয় ওভারের প্রথম বলে মোহাম্মদ নাঈম আউট হন। ১ রানে তার বিদায়ে ভাঙে উদ্বোধনী জুটি। কোল ম্যাককনচি অভিষেকে প্রথম বলেই উইকেট পান। শর্ট কভারে হেনরি নিকলসের ক্যাচ হন নাঈম। পরের ওভারে এজাজ প্যাটেল ১ রানে লিটন দাসকে টম ল্যাথামের ক্যাচ বানান। এরপর দলের হাল ধরেন মুশফিকুর রহিম ও সাকিব আল হাসান। তবে দলের বিপর্যয় সামাল দিয়ে সাজঘরে ফিরেন সাকিব। দলীয় ৩৭ রানে আউট হন তিনি রাচিন রবীন্দ্রর বলে। ৩৩ বলে ২ চারে ২৫ রান করে টম ল্যাথামের গ্লাভসে ধরা পড়েন সাকিব। তিনি ফিরে গেলেও লড়াই করতে থাকেন মুশফিক। এবং দলকে জিতিয়ে মাঠ ছাড়েন তিনি। মুশফিক ২৫ বলে ১২ রান করে অপরাজিত ছিলেন। যোগ্য সঙ্গ দিয়ে অধিনায়ক রিয়াদ ২২বলে ১৪ রান তুলে ছিলেন।

নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে ব্যাট হাতে বেশ দাপটে খেলেছেন মুশফিক ও সাকিব

এদিকে বাংলাদেশ সফরে টি-টোয়েন্টি সিরিজ খেলতে এসে হোম অব ক্রিকেট মিরপুরের উইকেট নিয়ে অনেক গবেষণা করেছে সফরকারী নিউজিল্যান্ড। কিন্তু প্রথম ম্যাচে বুধবার (১ সেপ্টেম্বর) ব্যাট হাতে টাইগার বোলারদের সামনে পাত্তাই পায়নি কিউই ব্যাটসম্যানরা। ফলে এদিন ১৬. ৫ ওভারে সব উইকেট হারিয়ে ৬০রান তুলতে সক্ষম হয় সফরকারীরা। এদিন টস জিতে আগে ব্যাটিং করার সিদ্ধান্ত নেন নিউজিল্যান্ডের অধিনায়ক টম লাথাম। কিন্তু ব্যাট হাতে শুরুটা ভালো করতে পারেনি সফরকারীরা।

অস্ট্রেলিয়া সিরিজের মতো কিউইদের বিপক্ষেও শুরুর ওভারে আসেন অফস্পিনার মেহেদী। তাতে সফলতাও মেলে। ভালো লেংথের বল অভিষিক্ত রবীন্দ্র ঠিকমতো ব্যাট ছোঁয়াতে পারেননি। ফিরতি ক্যাচে রবীন্দ্র ফেরেন শূন্য রানে। তৃতীয় ওভারে সাকিব আল হাসান বোলিংয়ে এলে আবারও উইকেট পতন হয় সফরকারীদের। বোল্ড হয়ে ফেরেন উইল ইয়াং (৫)।

মারকুটে কলিন ডি গ্র্যান্ড হোম প্রমোশন পেয়ে নেমে বিগ হিটেই মনোযোগী হয়েছিলেন। কিন্তু চতুর্থ ওভারে নাসুমের বলে শেষ রক্ষা হয়নি তার। অভিজ্ঞ অলরাউন্ডার স্লগ সুইপে ধরা পড়েন ডিপ স্কয়ার লেগে। নাসুমের ওভারে বিপর্যয়ে পড়ে যাওয়া কিউইদের পরবর্তী শিকার টম ব্লান্ডেল। বোল্ড হয়ে ২ রানে ফিরেছেন তিনি। পাওয়ার প্লেতে ৪ উইকেট হারিয়ে পুরোপুরি ব্যাক ফুটে চলে যায় কিউইরা। তখন অবশ্য ধাক্কা সামাল দেওয়ার চেষ্টা করেন অধিনায়ক টম ল্যাথাম ও হেনরি নিকোলস। জুটি গড়ে তাতে সফলও হন। কিন্তু তাড়াহুড়ো করে খেলতে গিয়ে উইকেট বিলিয়ে দেন ল্যাথাম। সাইফের বলে পুল করতে গিয়ে ধরা পড়েন কিউই অধিনায়ক।

দুর্দান্ত একটি শর্ট খেলার মুহূর্তে সাকিব

অভিষিক্ত কোল ম্যাকনকিও প্রত্যাশা পূরণ করতে পারেননি। সাকিবের ঘূর্ণিতে ক্যাচ তুলে দেন শর্ট মিডউইকেটে। এর পর থিতু হতে পারেননি হেনরি নিকোলসও। সাইফউদ্দিনের বলে উঠিয়ে মারতে গিয়ে ধরা পড়েন লং অনে। নিকোলস ফেরেন ১৭ রানে। আসা-যাওয়ার মিছিলে এর পর যোগ দেন এজাজ প্যাটেল। মোস্তাফিজুর রহমানের বলে অফস্টাম্প উপড়ে যায় তার। বল হাতে টাইগার পেসার মোস্তাফিজুর রহমান ১৩ রান খরচায় ৩ উইকেট শিকার করেন। আর দুটি করে উইকেট তুলে নেন নাসুম আহমেদ, সাকিব আল হাসান ও সাইফউদ্দিন।

  • সংবাদ সংলাপ/এমএস/রা

Sharing is caring!