নোয়াখালী প্রতিনিধি :
নোয়াখালীর বেগমগঞ্জের একলাশপুর ইউনিয়নে নারীকে বিবস্ত্র করে ধর্ষণের মামলায় বাদির সাক্ষ্য নিয়েছে আদালত। এরআগে গত ১৭ ফেব্রুয়ারি আসামিদের বিরুদ্ধে চার্জ গঠন করেন আদালত।

বুধবার (১৮ আগস্ট) দুপুরে জেলা নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল-১ এর বিচারক জয়নাল আবেদিন মামলার বাদির স্বাক্ষ্য নেন। এসময় মামলার দুই আসামি দেলোয়ার হোসেন দেলু ও আবুল কালাম আদালতে উপস্থিত ছিলেন।

রাষ্ট্র পক্ষে মামলাটি পরিচালনা করেন নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালের পিপি অ্যাডভোকেট মামুনুর রশিদ লাবলু। তিনি জানান, বাদির সাক্ষ্য গ্রহণ শেষে দুই আসামিকে কারাগারে পাঠানো হয়েছে। আগামী ২২ আগস্ট মামলার পরবর্তী তারিখ দার্য করা হয়েছে।

মামলা সূত্রে জানা গেছে, ওই নারীর সাবেক স্বামী ২০২০ সালের ২ সেপ্টেম্বর রাতে তার সঙ্গে দেখা করতে তার বাবার বাড়ি বেগমগঞ্জের একলাশপুর ইউনিয়নের জয়কৃষ্ণপুর গ্রামের তাদের ঘরে আসেন। এ সময় স্থানীয় দেলোয়ার হোসেন ওরফে দেলু রাত ১০টার দিকে তার বাহিনীর সদস্যদের নিয়ে ওই নারীর ঘরে প্রবেশ করে অনৈতিক কর্মকান্ডের অভিযোগ করেন। তারপর ওই নারীকে নির্যাতন করে বিবস্ত্র করে ভিডিও চিত্রধারণ করে। এ ছাড়াও নারীর ঘরে ও একাধিক স্থানে দেলোয়ার তাকে ধর্ষণ করেন। এরপর গত ৪ অক্টোবর বিবস্ত্র নির্যাতনের ভিডিও চিত্র ফেসবুকে ভাইরাল হলে দেশে তোলপাড় সৃষ্টি হয়।

বেগমগঞ্জের একলাশপুর ইউনিয়নে নারীকে বিবস্ত্র করে নির্যাতন এবং ধর্ষণের ঘটনায় ২০২০ সালের ৬ অক্টোবর ভুক্তভোগী বাদি হয়ে দেলোয়ার হোসেন ও আবুল কালমকে আসামি করে বেগমগঞ্জ থানায় একটি মামলা দায়ের করে। পরে ওই মামলায় অভিযুক্ত দুই আসামিকে গ্রেফতার করে পুলিশ। পরে এ ঘটনায় নির্যাতিতার দায়ের করা নির্যাতন, ধর্ষণ ও পর্নোগ্রাফি মামলা অধিকতর তদন্তের জন্য পিবিআইতে হস্তান্তর করা হয়।

  • সংবাদ সংলাপ/এমএস/রা

Sharing is caring!