সংলাপ প্রতিবেদক :

রাজধানীর মোহাম্মদপুরের জামি’আ রাহমানিয়া আরাবিয়া মাদ্রাসার কর্তৃত্ব হারালেন আলোচিত হেফাজত নেতা মামুনুল হক ও তার বড় ভাই মাহফুজুল হক। মাদ্রাসাটিতে অভিযান চালানোর পর এর দায়-দায়িত্ব ওয়াকফ এস্টেটকে বুঝিয়ে দিয়েছে ঢাকা জেলা প্রশাসক।

মাদ্রাসা প্রাঙ্গনে সোমবার বিকেল ৪টার দিকে জরুরি সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য জানান ঢাকা জেলা প্রশাসনের নির্বাহী মেজিস্ট্রেট আব্দুল আওয়াল।

এর আগে সকালে মাহফুজুল হক মাদ্রাসার দখল ছাড়ার পর সকাল ১১টার দিকে মাদ্রাসাটি ‘অবৈধ দখল মুক্ত’ করতে যায় ঢাকা জেলা প্রশাসন।

বেলা ১২টার দিকে পুলিশের উপস্থিতে জেলা প্রশাসকের নেতৃত্বে প্রশাসনের কর্মকর্তারা মাদ্রাসার ভেতরে প্রবেশ করেন। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়।

ঢাকা জেলা প্রশাসনের নির্বাহী মেজিস্ট্রেট আব্দুল আওয়াল সাংবাদিকদের বলেন, ‘যেই মাদ্রাসাটির সামনে আমরা দাঁড়িয়ে আছি সেটা একটি মসজিদ ও ওয়াকফ এস্টেট। এই ওয়াকফ এস্টেটে আগে বিভিন্ন ইস্যু ছিল। কোর্টে বিভিন্ন মামলা চলমান ছিল। মামলা চলমান থাকার সুবাদে একটি পক্ষ এটার দখলে ছিল।’

তিনি আরও বলেন, ‘এই মাসে আমরা ওয়াকফ প্রশাসনের মাধ্যমে জেলা প্রশাসনের কাছ থেকে নির্দেশিত হয়েছি যে, এখানে যারা অবৈধ দখলদার আছে তাদের উচ্ছেদ করে মাদ্রাসাটি নির্বাচিত বৈধ কমিটির কাছে দখল হস্তান্তর করার জন্য। সেই পরিপ্রেক্ষিতে আমি জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে এখানে আসেছি।

‘আমাদের এখানে সরকারি বিভিন্ন সংস্থার লোকজন আছেন। এ ছাড়া, আইন শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর লোকেরা এখানে আছেন। তাদের সহযোগিতায় নতুন যে কমিটি ওয়াকফ এস্টেট থেকে গঠন করা হয়েছে তাদের আমরা দায়িত্ব বুঝিয়ে দিয়েছি।’

আব্দুল আওয়াল জানান, মাদ্রাসাটির জন্য ওয়াকফ প্রশাসনের গড়ে দেয়া নতুন কমিটির সভাপতি করা হয়েছে আব্দুল রহিমকে।

তিনি বলেন, ‘যেহেতু ওয়াকফ এস্টেট প্রশাসন কর্তৃক কমিটি গঠিত হয়েছে আমরা তার কাছে দায়িত্ব বুঝিয়ে দিয়েছি।’

মাদ্রাসায় অভিযান চালানোর সময় কোনো বাধার সম্মুখিন হয়েছেন কি না এমন প্রশ্নের জবাবে ঢাকা জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট বলেন, ‘অভিযান পরিচালনা করতে আমরা কোনো বাধার সম্মুখীন হইনি।

‘তবে প্রথমে আমরা যখন এখানে আসলাম তখন দেখলাম এখানে তালা মারা আছে, ভেতরে কোনো লোকজন পাইনি। যেহেতু সব জায়গায় তালা মারা ছিল তাই দখল ও হস্তান্তরের স্বার্থে তালা ভেঙে আমরা দায়িত্ব হস্তান্তর করেছি।’

মাদ্রাসার দখলে আগে যারা ছিলেন তার অধ্যক্ষ মাওলানা মাগফুল হক বলেছিলেন বেফাকের সভাপতি মাওলানা মাহমুদুল হাসানের কাছে এ মাদ্রাসার দায়িত্ব হস্তান্তর করা হবে।

এ বিষয়ে কিছু জানেন কিনা, এমন প্রশ্নে আওয়াল বলেন, ‘আমরা এ বিষয়ে কিছু জানি না। আমরা বাইরে একটা নোটিশ দেখেছিলাম, যাতে কারও স্বাক্ষরও নেই।’

  • সংবাদ সংলাপ/এমএস/বি

Sharing is caring!