নিউজ ডেস্ক :

রাশিয়ার উৎপাদিত করোনাভাইরাসের টিকা ‘স্পুটনিক ফাইভ’ ব্যবহারে অনুমোদন দিয়েছে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় গঠিত জরুরি জনস্বাস্থ্য ক্ষেত্রের ওষুধ, পরীক্ষামূলক ওষুধ, টিকা ও মেডিকেল সরঞ্জামবিষয়ক কমিটি। এখন রাশিয়ার এই টিকা আমদানি ও ব্যবহারে আইনগত কোনো বাধা থাকল না।

মঙ্গলবার (২৭ এপ্রিল) ঔষুধ প্রশাসন অধিদপ্তরের এক সভায় টিকা অনুমোদনের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। বেলা সাড়ে ১১টায় মহাখালীর বিসিপিএস প্রাঙ্গণে ভ্যাকসিন ইস্যুসহ অন্যান্য সমসাময়িক বিষয়ে আলাপকালে একথা জানান স্বাস্থ্যমন্ত্রী।

ভারতের ভ্যাকসিন অনিশ্চয়তায় চীন, রাশিয়া ও যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে যোগাযোগ করা হচ্ছে বলেও জানান তিনি।

এ সংক্রান্ত সরকারি নথিপত্রে উল্লেখ করা হয়েছে, কিনতে চাইলে রাশিয়া বাংলাদেশকে আগামী মাস অর্থাৎ মে থেকেই টিকা দিতে পারবে।

ঔষধ প্রশাসনের স্পুটনিক-ফাইভ টিকার বিষয়ে সিদ্ধান্তের পর বাংলাদেশে অনুমোদন পাওয়া টিকার সংখ্যা দাঁড়াল দুটি। এর আগে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় গঠিত জরুরি জনস্বাস্থ্য ক্ষেত্রের ওষুধ, পরীক্ষামূলক ওষুধ, টিকা ও মেডিকেল সরঞ্জামবিষয়ক কমিটি অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকার টিকা জরুরি ব্যবহারের অনুমোদন দিয়েছিল। দেশের শীর্ষ স্থানীয় জনস্বাস্থ্যবিদ, টিকা বিশেষজ্ঞ, ওষুধবিজ্ঞানী ও রোগতত্ত্ববিদেরা এই কমিটির সদস্য।

সরবরাহ না থাকায় কোভ্যাক্স থেকে মিলছে না বাংলাদেশের জন্য বরাদ্দ ১০ কোটি ৯ লাখ ৮ হাজার ডোজ করোনার টিকা। একই সঙ্গে জুনের মধ্যে আসতে পারে ফাইজারের ১ লাখ ৬২০ ডেজ টিকা।

  • সংবাদ সংলাপ/এমএস/দু

Sharing is caring!