মোহাম্মদ সোহেল, নোয়াখালী :
নোয়াখালীর কোম্পানীগঞ্জে শান্তি বিনষ্টকারীদের বিরুদ্ধে সাংগঠনিক ব্যবস্থা গ্রহনের দাবি জানিয়েছেন বসুরহাট পৌরসভার মেয়র আবদুল কাদের মির্জা।

রোববার (৩১ অক্টোবর) দুপুরে নোয়াখালী জেলা আওয়ামী লীগের আহ্বায়ক কমিটির আগমন উপলক্ষে এক কর্মী সমাবেশে তিনি এ দাবি জানান। কর্মী সমাবেশের শুরুতে জেলা আওয়ামী লীগের আহবায়ক অধ্যক্ষ খায়রুল আনম চৌধুরী সেলিম, যুগ্ম আহবায়ক এডভোকেট শিহাব উদ্দিন শাহীন ও শহিদ উল্যাহ খান সোহেলকে ফুল দিয়ে বরণ করে নেন কাদের মির্জা।

কাদের মির্জা বলেন, কোম্পানীগঞ্জ ছিল শান্তির জনপদ। এখানে ২টা মায়ের বুক খালি হয়েছে। অনেক নেতাকর্মী মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ছে। অনেক নেতাকর্মী মামলার আসামি হয়ে পালিয়ে বেড়াচ্ছে। কাদের নির্দেশে এসব হয়েছে তার তদন্ত করে সঠিক বিচার করতে হবে। এছাড়াও শান্তি বিনষ্টকারীদের বিরুদ্ধে সাংগঠনিক ব্যবস্থা নিতে হবে।

মির্জা কাদের আরও বলেন, আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনে নোয়াখালীর সব আসনে আওয়ামী লীগকে বিজয়ী করতে হবে। বাংলাদেশের উন্নয়নকে আরো গতিশীল করতে শেখ হাসিনার সরকারকে জয়ী করতে হবে। ওবায়দুল কাদের সাহেবের হাতকে শক্তিশালী করতে সবাইকে ঐক্যবদ্ধ থাকতে হবে।

নিজের ওপর হামলার সষ্ঠু তদন্তের দাবি করে কাদের মির্জা বলেন, ৭ বার আমাকে হত্যা চেষ্টা করা হয়েছে। গত ৯ মার্চ আমার পৌরসভাকে লক্ষ্য করে ২ হাজার রাউন্ড গুলি করেছে। কোম্পানীগঞ্জের কোন অপরাধে আমি আর আমার নেতাকর্মীরা জড়িত হলে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেন। যেই ব্যবস্থা গ্রহণ করবেন আমি মাথা পেতে নিবো।

এসময় জয় বাংলা ও জয় বঙ্গবন্ধু স্লোগানকে জাতীয় স্লোগান ঘোষণা করতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রতি অনুরোধ করেন বসুরহাট পৌরসভার মেয়র আবদুল কাদের মির্জা।

কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগ ও সহযোগী সংগঠনের আয়োজনে কর্মী সমাবেশে বক্তব্য রাখেন জেলা আওয়ামী লীগের আহ্বায়ক অধ্যক্ষ খায়রুল আনাম চৌধুরী সেলিম, যুগ্ম আহ্বায়ক এডভোকেট শিহাব উদ্দিন শাহীন, জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম আহ্বায়ক ও নোয়াখালী পৌরসভার মেয়র শহিদ উল্যাহ খান সোহেল, নোয়াখালী-৬ (হাতিয়া) আসনের সংসদ সদস্য আয়েশা ফেরদৌস, হাতিয়া উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি সাবেক সংসদ সদস্য মোহাম্মদ আলী।

কর্মী সমাবেশে উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ইস্কান্দার হায়দার চৌধুরী বাবুল, সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ ইউনুছ, উপজেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা আবু নাছের, সাবেক মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার আজিজুল হক, উপজেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি জামাল উদ্দিন, উপজেলা কৃষক লীগের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা আজিজ, উপজেলা আওয়ামী লীগের মুক্তিযোদ্ধা বিষয়ক সম্পাদক বীর মুক্তিযোদ্ধা জামাল উদ্দিন ও পৌরসভা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আবুল খায়েরসহ আওয়ামী লীগ ও সহযোগী সংগঠনের নেতারা উপস্থিত ছিলেন।

  • সংবাদ সংলাপ/এমএস/বি

Sharing is caring!