মোহাম্মদ সোহেল :

দেশের জাতীয় অর্থনীতির উন্নয়ন শক্তিগুলোর মধ্যে স্বাধীন সংবাদমাধ্যম গুরুত্বপূর্ণ একটি অংশ। ইতিপূর্বে দেশের গণতন্ত্র, সুশাসন ও উন্নয়নে প্রিন্ট ও ইলেক্টনিক্স মিডিয়ার ভূমিকার কথা কম-বেশি সবার জানা আছে। একুশ শতকে এসে তথ্য-প্রযুক্তির এই যুগে সংবাদমাধ্যমে যুক্ত হয়েছে অনলাইন সংবাদমাধ্যম। নতুন বিশ্ব, নতুন চ্যালেঞ্জ। তথ্য-প্রযুক্তির অভাবনীয় এ উন্নতি ও উৎকর্ষের সুবাদে দ্রুতই বদলে যাচ্ছে মানব সভ্যতার দৃশ্যপট।

তথ্য-প্রযুক্তির এই যুগে অনলাইন মিডিয়াকে বলা হয় নিউ মিডিয়া টেকনোলজি। এরই একটা অংশ হলো অনলাইন নিউজ পোর্টাল। ওয়ার্ল্ড ওয়াইড ওয়েবের কাগজ-ছাপাখানাহীন অনলাইন সংবাদমাধ্যম। অন্যভাবে বলা যায় এটি একটি আধুনিক সংবাদ পরিবেশন মাধ্যম।

বাংলাদেশে ২০০৪ সালে যাত্রা শুরু করে প্রথম অনলাইন নিউজ পোর্টাল বিডিনিউজ২৪.কম। সেই থেকে দেশের সংবাদমাধ্যমে যুক্ত হয়েছে শত শত নিউজ পোর্টাল। বিপুল সংখ্যক নিউজ পোর্টালের মধ্যে ‘বিশ্বাসযোগ্য সংবাদ মাধ্যম’ হিসেবে প্রতিষ্ঠিত হয়েছে অর্ধশতাধিক নিউজ পোর্টাল। তবে এ কথা স্বীকার করতে হবে যে, আমাদের দেশে অনলাইন সংবাদমাধ্যম শৈশব ছেড়ে কেবল কৈশোরে পা দিয়েছে, যৌবনে পা রাখতে আরও সময় লাগবে। তখনই মূলত সংবাদপত্র সত্যিকার চ্যালেঞ্জের মুখে পড়বে। যদিও এখনো এ নিয়ে কিছু বিতর্ক চলছে। বিতর্ক হচ্ছে- সংবাদপত্র কি মানুষের সংবাদ-আগ্রহের কেন্দ্রে থাকবে, নাকি নিউজ পোর্টালগুলো সংবাদ যোগানের ‘বিকল্প’ থেকে ‘মূলধারা’ হয়ে দাঁড়াবে? বর্তমান আধুনিক সভ্যতার অভাবনীয় উন্নতি ও উৎকর্ষের দৃর্শপট দেখে আমাদের প্রত্যাশা থাকবে ‘সংবাদ যোগানের “মূলধারা” হয়ে উঠুক নিউজ পোর্টাল’।

বর্তমানে বিশ্বের নামী-দামী পত্রিকাগুলো তাদের প্রচারসংখ্যা ধরে রাখতেই হিমশিম খাচ্ছে। প্রতিদিন তাদের পাঠকসংখ্যা কমে যাচ্ছে। বিপরীতে নিউজ পোর্টালের পাঠকসংখ্যা বেড়েই চলেছে। যে কারণে শুধু মুদ্রণ ভার্সনে ভরসা রাখতে পারছেন না সংবাদপত্রের নীতি নির্ধারকরা। ফলে তারা কাগজের পাশাপাশি ‘ই-পত্রিকা’ হিসেবে অনলাইনেও প্রকাশ করছেন সংবাদপত্র। ই-পেপার মুদ্রণমাধ্যমে দেখতে যেমন, ওয়েবেও ঠিক একই রকমভাবে পাওয়া যায়। একই সাথে প্রতিটি সংবাদপত্রের রয়েছে অনলাইন ভার্সন। পরের দিনে প্রকাশিত বিশেষ গুরুত্বপূর্ণ খবরগুলো ঘটনার সাথে সাথেই অনলাইন ভার্সনে প্রকাশ করা হয়। তবে ওই খবরের বিস্তারিত থাকে মুদ্রণমাধ্যমে। একই সঙ্গে প্রায় প্রতিটি পত্রিকাই একই নামে অনলাইন নিউজ পোর্টাল হিসেবেও আত্মপ্রকাশ করছে। শুধু পত্রিকা কেন, অনলাইনের সঙ্গে পাল্লা দিতে হচ্ছে টেলিভিশন চ্যানেলগুলোকেও। তারাও এখন ঘণ্টায় ঘণ্টায় খবর প্রচারের সঙ্গে সঙ্গে অনলাইন পোর্টালে তাদের প্রকাশিত খবরগুলো প্রচার করছে।

সময়ের সাথে সাথে এগিয়ে চলছে বাংলাদেশ। প্রযুক্তির আলো ছড়িয়ে পড়ছে সব জায়গায়। দেশজুড়ে বিস্তৃতি লাভ করেছে দ্রুতগতির ইন্টারনেট। বিশ্বায়নের যুগে সারা বিশ্বের ব্যস্ত পাঠকের কাছে এর জনপ্রিয়তা অনেক। যখন ঘটনা, তখনই সংবাদ। এ সংবাদমাধ্যমে যেকোনো সংবাদ মুহুর্তের মধ্যেই ছড়িয়ে দেওয়া যায় সারা বিশ্বে। আগে কোনো ঘটনা ঘটলে তার জন্য অপেক্ষা করতে হতো পরের দিন সকাল পর্যন্ত। কখন সংবাদপত্র আসবে, কখনইবা খবরটা পড়বো। এখন প্রযুক্তির সুবাদে সেই অপক্ষোর অবসান হয়েছে। পত্রিকা কেনার জন্য এখন আর হকারের দোকানে যেত হয় না। স্মার্টফোনটা ওপেন করে ইন্টারনেটের সার্চ দিলেই  www.sangbadsanglap.com সহ পৃথিবীর সব সংবাদমাধ্যম পাওয়া যায়।

ইন্টারনেটের এই যুগে হয়ত একদিন ঘুম থেকে জেগে দেখা যাবে নাস্তার টেবিলে আর নেই আজকের কাগজ। আমরা যেমন ছেড়ে এসেছি গ্রামোফোন, টেপরেকর্ডার, ক্যাসেট প্লেয়ারের যুগ, ঠিক তেমনি করেই হয়ত আগামী দিনে ভুলে যেতে হবে খবরের কাগজের যুগ।

বিশ্বব্যাপী অনলাইনের সংবাদ, বিজ্ঞাপন, আন্দোলন, প্রচারণা, ই-কমার্স জনপ্রিয়। বাংলাদেশেও অনলাইনের জনপ্রিয়তা বেড়েছে তুমুলভাবে। মানুষের দৈনন্দিন জীবনযাপনে আনলাইনের প্রভাব বৃদ্ধি পেয়েছে অনেক বেশি। ব্যবসা-বাণিজ্যেও অনলাইনের প্রভাব বাড়ছে জ্যামিতিক হারে। ফলে নিজেদের টিকিয়ে রাখতেই অনলাইন নির্ভর হচ্ছে মানুষ। অনলাইন সবুজবান্ধব প্রযুক্তি হিসেবেও সমাদৃত হচ্ছে। আর প্রযুক্তির যুগে এর সম্ভাবনা অনেক বেশি সুদূরপ্রসারী। আগামীতে আরো ব্যাপকভাবে এটার ব্যবহার করা হবে। এজন্যই আগামীতে এর পাঠক বাড়বে, গুরুত্ব বাড়বে, প্রভাব বাড়বে।

তবে অনলাইনের যুগে টাটকা খবরের সহজলভ্যতা থাকলেও অনলাইন নিউজ পোর্টালগুলোর কয়েকটির মাঝে সংবাদ প্রকাশের ক্ষেত্রে রয়েছে অনাকাঙ্খিত আর অশুভ প্রতিযোগিতা। অনেক ক্ষেত্রে তথ্যের সত্যটা যাচাই ছাড়াই সংবাদ প্রকাশ করে শীর্ষস্থানীয় অনেক নিউজ পোর্টাল। যেহেতু পরবর্তীতে সংবাদ পরিবর্তন বা সম্পাদনার সুযোগ রয়েছে সেহেতু সবার আগে সংবাদ প্রকাশ করে পরে আবার তা পরিবর্তনও করছে অনেকে। আবার সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের গুজবকে ভিত্তি করে অনেক নিউজ পোর্টাল নানা রকম সংবাদ প্রকাশ করছে। যা সাংবাদিকতার নীতিমালার সঙ্গে সাংঘর্ষিক। শুধু তাই নয়, নিউজ পোর্টালের পাঠক বৃদ্ধির জন্য অনেক পোর্টাল অশ্লীল ছবি ও ভিডিও যুক্ত করে নানারকম বানোয়াট সংবাদ প্রকাশ করছে। তবে এই ধরনের পোর্টালের প্রতি পাঠকের তাৎক্ষণিক আকর্ষণ থাকলেও স্থায়ী গ্রহণযোগ্যতা নেই বললেই চলে।

বর্তমানে দেশের অনলাইন নিউজ পোর্টালের পাঠক সংখ্যার বেশির ভাগই তরুণ-তরুণী। এই তরুণ-তরুণীদের নানাভাবে প্রভাবিত করছে নিউজ পোর্টালগুলো। এর মধ্যে রয়েছে নেতিবাচক প্রভাবও। সেই অশুভ প্রভাব থেকে মুক্ত থাকতে সামাজিকভাবে গ্রহণযোগ্য অশ্লীলতামুক্ত নিউজ পোর্টালগুলোর দিকেই লক্ষ্য রাখতে হবে। একই সঙ্গে ভেরিফাইড ফেসবুক পেইজ ছাড়া অন্য পেইজগুলো থেকে তথ্য নিয়ে সংবাদ হিসেবে প্রকাশ না করার ক্ষেত্রেও গুরুত্ব দিতে হবে নিউজ পোর্টাল সংশ্লিষ্টদের।

দেশের গণতন্ত্র, সুশাসন ও উন্নয়নে সামিল হতে ২০১৮ সালের ০৭ সেপ্টম্বর অনলাইন সংবাদমাধ্যমে যুক্ত হয়েছে “সংবাদ সংলাপ ডটকম”। আজ সংবাদ সংলাপ ডটকম এর তৃতীয় প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী। নানা সীমাবদ্ধতার মধ্যেও আমরা মুক্তিযুদ্ধের চেতনায়- নতুন আঙ্গিকে, নতুন কলবরে গত তিনটি বছর দেশের সুষ্ঠ গণতন্ত্র চর্চা, সুশাসন কায়েম, উন্নয়ন, জবাবদিহিতা, জনমত সৃষ্টি এবং অন্যায়ের বিরুদ্ধে সবচেয়ে কার্যকর ভূমিকা রেখে সংবাদ প্রকাশ করে আসছি। তথ্যবহুল সংবাদ পাঠকের কাছে পৌঁছে দিতে আমরা নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছি। সংবাদ সংলাপ ডটকম এর প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে সংবাদ সংলাপ পরিবারের সকল সদস্য, পাঠক, শুভাকাঙ্খিদের জানাচ্ছি আন্তরিক শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন।

লেখক :
সম্পাদক- সংবাদ সংলাপ ডটকম
shohelmnnoakhali@gmail.com

Sharing is caring!