মোহাম্মদ সোহেল, নোয়াখালী :
নোয়াখালীর বেগমগঞ্জের জমিদারহাট বিএন উচ্চ বিদ্যালয়ে বড় ভাইয়ের এসএসসি পরীক্ষা দেওয়ায় ছোট ভাই মো. ছালা উদ্দীনকে (২১) এক বছরের কারাদন্ড দিয়েছে ভ্রাম্যমাণ আদালত। এছাড়াও ৫ হাজার টাকা অর্থদন্ড দেওয়া হয়।

সোমবার (২২ নভেম্বর) সকাল ১০ টা ৪০ মিনিটের দিকে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করেন বেগমগঞ্জ উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) শামসুন নাহার।

মো. ছালা উদ্দীন নরোত্তমপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের ১০ম শ্রেণির বিজ্ঞান বিভাগের ছাত্র ও বেগমগঞ্জ উপজেলার শরিফপুর ইউনিয়নের খানপুর গ্রামের অলি উল্যাহর ছেলে। তার বড় ভাই জহির উদ্দিন (২৩) সৌদি আরবে থাকায় প্রক্সি দিয়ে আসছিল।

জমিদারহাট বিএন উচ্চ বিদ্যালয়ের কেন্দ্র সচিব মহিন উদ্দীন বলেন, আমাদের এই কেন্দ্রে ৯টি বিদ্যালয়ের ১ হাজার ২৫০ জন শিক্ষার্থী এসএসসি পরীক্ষা দিচ্ছে। এই ছেলেটা কিভাবে বড় ভাইয়ের পরীক্ষা দিচ্ছে তা আমাদের জানা ছিল না। হলে দায়িত্বরত শিক্ষকদের অবহেলা থাকতে পারে।

উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মো. গাউছুল আজম পাটওয়ারী বলেন, আমি নতুন দায়িত্ব পেয়েছি। তবে এমন ঘটনা দুঃখজনক। আমরা বিষয়টির জন্য সকল কেন্দ্র সচিবকে তলব করেছি। এ বিষয়ে যাদের প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষ সহযোগিতা রয়েছে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

নরোত্তমপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ইউনুছ নবী মানিক বলেন, এ বিষয়ে আমার ধারণা নেই। যারা কেন্দ্রে দায়িত্বে ছিলেন তারা ভাল জানতে পারবেন।

বেগমগঞ্জ উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) ও ভ্রাম্যমান আদালতের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট শামসুন নাহার বলেন, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে জীব বিজ্ঞান পরীক্ষা চলাকালীন ছালা উদ্দীনকে আটক করা হয়। তার প্রবেশপত্র ও রেজিস্ট্রেশন কার্ড দেখে জানা যায়, বড় ভাইয়ের প্রক্সি দিয়ে আসছিল।

শামসুন নাহার আরও বলেন, পাবলিক পরীক্ষা সমূহ (অপরাধা আইন) ১৯৮০ (৩) অনুযায়ী মো. ছালা উদ্দীনকে এক বছরের বিনাশ্রম কারাদন্ড এবং ৫ হাজার টাকা অর্থদন্ড করা হয়। এ বিষয়ে কারা জড়িত আছে তদন্ত করে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

  • সংবাদ সংলাপ/এমএস/রা

Sharing is caring!