সংলাপ প্রতিবেদক :

করোনা মহমামীর কারণে বিশ্ব অর্থনীতির বিপর্যস্ত হলেও আশা জাগাচ্ছে দেশের বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ। স্বাধীনতার ৫০ বছরে পৌছে নতুন উচ্চতায় উঠে এল দেশের রিজার্ভ। আমদানি ব্যয় বাড়ার পরও রিজার্ভ এক লাফে ৪ হাজার ৮০০ কোটি ডলারের মাইলফলক অতিক্রম করেছে। এ রেকর্ড অর্জিত হয় আজ মঙ্গলবার (২৪ আগস্ট)।

এ দিনের কার্যদিবস শেষে বাংলাদেশ ব্যাংকের রিজার্ভের পরিমাণ দাঁড়িয়েছে ৪৮ দশমিক ০৪ বিলিয়ন ডলার, যা অতীতের যে কোনো সময়ের চেয়ে বেশি।

বাংলাদেশ, ভুটান, ভারত, ইরান, মিয়ানমার, নেপাল, পাকিস্তান, শ্রীলংকা ও মালদ্বীপ- এই ৯টি দেশ বর্তমানে আকুর সদস্য। এই দেশগুলো থেকে বাংলাদেশ যেসব পণ্য আমদানি করে তার বিল দুই মাস পরপর আকুর মাধ্যমে পরিশোধ করতে হয়। আন্তর্জাতিক মানদণ্ড অনুযায়ী, একটি দেশের কাছে অন্তত তিন মাসের আমদানি ব্যয় মেটানোর সমপরিমাণ বিদেশি মুদ্রার মজুদ থাকতে হয়।

প্রতি মাসে ৬ বিলিয়ন ডলার আমদানি ব্যয় হিসেবে মজুদ দেশের এই বৈদেশিক মুদ্রা দিয়ে ৮ মাসের আমদানি ব্যয় মেটানো সম্ভব।

বাংলাদেশ ব্যাংক সূত্র বলছে, প্রবাসীদের পাঠানো রেমিটেন্সের ধারা এবং আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিলের (আইএমএফ) ১ দশমিক ৪৫ বিলিয়ন ডলারের ঋণ সহায়তা যোগ হওয়ায় রিজার্ভ এই মাইলফলক অতিক্রম করেছে।

  • সংবাদ সংলাপ/এমএস/দু

Sharing is caring!