সংলাপ প্রতিবেদক :

স্বাধীনতা পদক প্রদানেও সরকার আত্বীয়করণ করেছে বলে অভিযোগ করেছে বিএনপি। দলটির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, যাদেরকে স্বাধীণতা পদক দেয়া হয়েছে তদন্ত করলে দেখা যাবে এদের বেশির ভাগই হয় তারা মন্ত্রীদের আত্বীয়-স্বজন অথবা তারা প্রধানমন্ত্রীর আত্বীয়-স্বজন।

বৃহস্পতিবার (২৪ ফেব্রুয়ারি) দুপুরে জাতীয় প্রেসক্লাব মিলনায়তনে দলের স্বাধীনতার সূবর্ণজয়ন্তী উদযাপনের এক আলোচনা সভায় বিএনপি মহাসচিব এই অভিযোগ করেন। জয়ন্তী উদযাপনে চিকিতসা ও সেবা কমিটির উদ্যোগে স্বনির্ভর দেশ গঠনে প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমান ও আপোষহীন দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার অবদান’ শীর্ষক এই আলোচনা সভায় ৭জন প্রখ্যাত চিকিতসক মুক্তিযোদ্ধাকে তাদের অবদানের জন্য ক্রেস্ট প্রদান করেন।

এরা হলেন, অধ্যাপক ফরিদুল হুদা, অধ্যাপক মোবিন খান, অধ্যাপক শামসুল ইসলাম, ডা. সাহাদাত হোসেন, অধ্যাপক মোমিনুল ইসলাম, অধ্যাপক আব্দুল কুদ্দুস, অধ্যাপক সিরাজ উদ্দিন আহমেদ ও অধ্যাপক আবদুল হক। এছাড়া বিএনপির খন্দকার মোশাররফ হোসেন, মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর ও আবদুস সালামকেও সন্মাননা ক্রেস্ট প্রদান করা হয়। প্রয়াত ডা. মো. ফরিদুল হুদার পক্ষে তার ছেলে নাজমুল হুদা বিপ্লব এবং অধ্যাপক মোবিন খানের পক্ষে ডা. সাইফুল ইসলাম লেলিন ক্রেস্ট গ্রহন করেন।

ফখরুল বলেন, যে স্বাধীনতার পদক যেটা শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমান চালু করেছিলেন সেই স্বাধীনতার পদক নিয়ে তারা দুর্নীতি করেছে। যেখানে আমির হামজা নামে একজনকে তারা পদক দিয়েছে, পরে তা বাতিল করে দিয়েছে। আবার নতুন করে তারা তদন্ত করছে। মির্জা ফখরুল বলেন, একটি ব্যর্থ ও অযোগ্য সরকারের পক্ষেই এমন কাজ সম্ভব।

বিএনপি মহাসচিব বলেন, চতুর্দিকে সরকার লুটপাট, দুর্নীতি এমন একটা জায়গায় নিয়ে গেছে যে, এখন এদেশকে রক্ষা করতে হলে একমাত্র এদেরকে সরানো ছাড়া বিকল্প কিছু নাই। আজকে এরা গণতন্ত্রের সর্বনাশ করেছে। লক্ষ লক্ষ মানুষকে আজকে এরা ঘরছাড়া করেছে।

সমস্ত পেশাজীবীদের কাছে আমরা আহবান জানাব, আসুন ঐক্যবদ্ধ হয়ে, সমস্ত রাজনৈতিক দলগুলো ঐক্যবদ্ধ হয়ে আমরা দুর্বার গণআন্দোলনের মধ্য দিয়ে এই সরকারকে সরিয়ে আমরা সত্যিকার অর্থে একটা জনগণের সরকার প্রতিষ্ঠা করি।

চিকিৎসা ও সেবা কমিটির আহবায়ক অধ্যাপক ফরহাদ হালিম ডোনারের সভাপতিত্বে ও সদস্য সচিব অধ্যাপক হারুন আল রশিদ ও সদস্য ডা. মেহেদী হাসানের সঞ্চালনায় আলোচনা সভায় বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য খন্দকার মোশাররফ হোসেন, চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা কাউন্সিলের সদস্য আবদুস সালাম, ডক্টরস অ্যাসোসিয়েশনের অধ্যাপক মহাসচিব অধ্যাপক আবদুস সালাম, কেন্দ্রীয় নেতা ডা. আব্দুস সেলিম, ডা. মোসাদ্দেক হোসেন ডাবলু, ডা. জহিরুল ইসলাম শাকিল, ডা. শহীদুল আলম প্রমূখ চিকিতসকরা বক্তব্য রাখেন।

  • সংবাদ সংলাপ/এমএস/রা

Sharing is caring!